April 23, 2021, 5:02 pm

সংবাদ শিরোনাম :
ঘুম ভেঙে দিয়েছে’ অভিযোগ এনে ভাতিজার মাথায় ফুটন্ত গরম ভাত নিক্ষেপ চাচার প্রজ্ঞাপন/ রোববার থেকে দোকান-শপিংমল খোলা অল্পের জন্য রক্ষা পেল কুষ্টিয়ার কম্পিউটার মার্কেট কুষ্টিয়ার সড়কে বালু নিয়ে ছুটছে অবেধ ট্রলি করোনা ব্যবস্থাপনা নিয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটির মতবিনিময় সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় ধাপ শুরু ঝিনাইদহে ৩১, রাজবাড়ী ৩৩/১১ কোটি টাকা প্রণোদনা পাচ্ছেন ২৬৭৯ নার্স চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া অঞ্চলে তীব্র তাপদাহ, থাকবে আরও কয়েকদিন আগের বিয়ে নিয়ে কলহ/ বিয়ের ১০ দিনেই শশুর বাড়িতে নববধূর ঝুলন্ত লাশ ২৫ দিনের ব্যবধানে আবারো বন্ধ জিকে সেচ প্রকল্পের পানি সরবরাহ

দেশে শকুনের সংখ্যা ২৬০, সংখ্যা বাড়াতে কাজ করছে সরকার

দৈনিক কুষ্টিয়া প্রতিবেদন/
দেশে বর্তমানে শকুনের সংখ্যা ২৬০টি। ইতোমধ্যে ৯৯ শতাংশ শকুন বিলুপ্ত হয়ে গেছে। তবে সংখ্যা বাড়াতে কাজ করছে সরকার। কাজ করছে বাংলাদেশ জাতীয় শকুন সংরক্ষণ কমিটি। শকুনের জন্য ক্ষতিকারক ওষুধ ডাইক্লোফেনাক নিষিদ্ধ করা হয়েছে। দেশব্যাপী শকুনের খাদ্য প্রাণীর চিকিৎসায় কিটোটিফেনও নিষিদ্ধকরণ বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা চলছে। এসব জানিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। আন্তর্জাতিক শকুন সচেতনতা দিবস উপলক্ষে বন অধিদপ্তর আয়োজিত ওয়েবিনারে তিনি এব বলেন।
মন্ত্রী জানান বিলুপ্তপ্রায় এ শকুনকে বাঁচাতে গণসচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সরকার শকুন সংরক্ষণে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে।
মন্ত্রী বলেন ২০১৩ সালে গঠিত ‘বাংলাদেশ জাতীয় শকুন সংরক্ষণ কমিটি’ এখন কাজ করছে। ইতোমধ্যে দেশের দু’টি অঞ্চলকে শকুনের জন্য নিরাপদ এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৬ সালে ১০ বছর মেয়াদী (২০১৬-২০২৫) বাংলাদেশ শকুন সংরক্ষণ কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে, যা দেশের শকুন রক্ষা করার জন্য দীর্ঘমেয়াদি কাঠামো হিসেবে কাজ করছে। এ কর্মপরিকল্পনাকে অগ্রাধিকার দিয়েই শকুন সংরক্ষণে বর্তমানে সব ধরনের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ২০১৫ সালে শকুনের প্রজননকালে বাড়তি খাবারের চাহিদা মেটানোর জন্য হবিগঞ্জের রেমা-কালেঙ্গা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে ও সুন্দরবনে দু’টি ফিডিং স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে। ২০১৬ সালে অসুস্থ ও আহত শকুনদের উদ্ধার ও পুনর্বাসন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দিনাজপুরের সিংড়ায় একটি শকুন উদ্ধার ও পরিচর্যা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। তিনি বলেন, শকুনের আবাসস্থলের দীর্ঘমেয়াদি পর্যবেক্ষণ ও শকুনের নিরাপদ এলাকার ব্যবস্থাপনার জন্য স্থানীয় জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করে শকুন সংরক্ষণ দল গঠন করা হয়েছে। সচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে এ দলগুলোর সহায়তায় মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন জনসচেতনতামূলক কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। সরকারের বহুমুখী পদক্ষেপের ফলে হবিগঞ্জের রেমা-কালেঙ্গায় ২০১৪ সালে শকুনের প্রজনন সফলতা ছিল ৪৪ শতাংশ, যা ২০২০ সালে বেড়ে ৫৭ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। যা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক।
সভায় জানানো হয়, এ পর্যন্ত ৯৩টি হিমালয়ান গ্রিফন প্রজাতির শকুন উদ্ধার, পরিচর্যার পর পুনরায় প্রকৃতিতে অবমুক্ত করা হয়েছে। ২০১৭ ও ২০১৯ সালে দেশে সপ্তম ও অষ্টম আঞ্চলিক পরিচালনা কমিটির সভায় শকুন সংরক্ষণে বিভিন্ন কার্যকরী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে, যা বাংলাদেশ তথা দক্ষিণ এশিয়ার শকুন সংরক্ষণের জন্য একটি মাইলফলক।
বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ওয়েবিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন উপ-মন্ত্রী হাবিবুন নাহার, মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান ও অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ড. মো. বিল্লাল হোসেন। এছাড়া ওয়েবিনারে আরও বক্তব্য রাখেন প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অঞ্চলের বন সংরক্ষক মিহির কুমার দো, গ্লোবাল থ্রেটেন্ড স্পিসিজ অফিসার এবং রয়্যাল সোসাইটি ফর দ্য প্রটেকশন অব দ্য বার্ডস এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার ক্রিস বাউডেন এবং আন্তর্জাতিক পাখি গবেষক ড. এনাম উল হক।
ওয়েবিনার সঞ্চালনা করেন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচারের (আইইউসিএন) কান্ট্রি রিপ্রেজেনটেটিভ রকিবুল আমীন।

নিউজটি শেয়ার করুন..


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পুরোনো খবর এখানে,তারিখ অনুযায়ী

MonTueWedThuFriSatSun
   1234
2627282930  
       
       
       
    123
       
     12
31      
      1
2345678
16171819202122
23242526272829
3031     
     12
3456789
10111213141516
17181920212223
242526272829 
       
© All rights reserved © 2021 dainikkushtia.net
Design & Developed BY Anamul Rasel